Breaking News

মহাদেব সাহা

মহাদেব সাহা (Mahadev Saha) বর্তমান সময়ের অন্যতম প্রধান বাঙ্গালি কবি। তিনি ১৯৪৪ সালের ৫ আগস্ট সিরাজগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। বাংলা সাহিত্যে অবদানের জন্য ইতিমধ্যে লাভ করেছেন বাংলা একাডেমী পুরস্কার ও একুশে পদকসহ বিভিন্ন সম্মানজনক পুরষ্কার। মহাদেব সাহার প্রেম, ভালোবাসা ও বিরহের কবিতা পাঠকের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। মহাদেব সাহা রচিত বইয়ের সংখ্যা প্রায় একশোর কাছাকাছি। বর্তমানে তিনি কানাডায় বাস করছেন।

স্পর্শ __মহাদেব সাহা

তোমার শরীরে হাত আকাশ নীলিমা স্পর্শ করে ভূমণ্ডল ছেয়ে যায় মধ্যরাতে বৃষ্টির মতন মুহূর্তে মিলায় দুঃখ, দুঃখ আমাকে মিলায় জলের অতল থেকে জেগে ওঠে মগ্ন চরাচর দেশ হয় দেশ, নদী হয় পূনর্বার নদী নৈঃশব্দ্য নিরুণ হাতে করতালি দেয় নিসর্গ উন্মুক্ত করে সারাদেহে নগ্ন শরীর কোন খানে রাখি তুলে দেহের বিস্তার ...

Read More »

তোমাকে ছাড়া __মহাদেব সাহা

তুমি যখন আমার কাছে ছিলে তখন গাছের কাছে গেলে আমার ভীষণ আনন্দ বোধ হতো লতাপাতার উৎসাহ দেখে আমি সারাদিন তার কাছে ঘুরে বেড়াতাম কোনো কোনো দেন পাখিদের বাষভূমিতে আমার অনেক উপাখ্যান শোনা হতো তুমি যখন আমার কাছে ছিলে তখন প্রত্যহ সূর্যোদয় দেখতে যেতাম তোমাদের বাড়ির পুরনো ছাদে তোমার সেই যে ...

Read More »

বন্ধুর জন্য বিজ্ঞাপন __মহাদেব সাহা

আমি একটি বন্ধু খুঁজছিলাম যে আমার পিতৃশোক ভাগ করে নেবে, নেবে আমার ফুসফূস থেকে দুষিত বাতাস ; বেড়ে গেলে শহরময় শীতের প্রকোপ তার মুখ মনে হবে সবুজ চয়ের প্যাকেট, এখানে ওখানে দেখা দিলে সংক্রামক রোগ, ক্ষয়কাশ উইয়ে-খাওয়া কারেন্সি নোটের মতো আমার ফুসফুসটিকে তীক্ষ্ণ দাঁতে ছিদ্র করে দিলে, সন্দেহজনকভাবে পুলিশ ঘুরলে ...

Read More »

একেক সময় মানুষ এতো অসহায় __মহাদেব সাহা

এই মানুষকে ছাড়া আর কাউকে কখনো আমি এতো অসহায় হয়েছে দেখিনি শীতে ভিজে প্রাণিকুল, পাখিরাও কাঁপে কিন্তু মনস্তাপে শুধু জ্বলে ভগবান, তোমার মানুষ! আর কেউ কখনো এমন গভীর কুয়াশা পিঠে চেপে একা ঘরে ফেরে নাই মানুষের মতো! কিংবা তাদের বেদনা আমি কতোখানি জানি, এই পশুপ্রাণী পাখিরা তো পাখিদের জীবনী লেখেনি ...

Read More »

চিঠি দিও – মহাদেব সাহা

করুণা করে হলে চিঠি দিও, খামে ভরে তুলে দিও আঙুলের মিহিন সেলাই ভুল বানানেও লিখো প্রিয়, বেশি হলে কেটে ফেলো তাও, এটুকু সামান্য দাবি চিঠি দিও, তোমার শাড়ির মতো অক্ষরের পাড়-বোনা একখানি চিঠি। চুলের মতন কোনো চিহ্ন দিও বিস্ময় বোঝাতে যদি চাও সমুদ্র বোঝাতে চাও, মেঘ চাও, ফুল, পাখি, সবুজ ...

Read More »

আমার হাতে দুঃখ পাচ্ছো __মহাদেব সাহা

আমার কাউকে আঘাত দেওয়ার কথা ছিলো না, আঘাত দেওয়ার কথা ছিলো না, কথা ছিলো না, কথা ছিলো না, তোমাকে আমার আঘাত দেওয়ার কথা ছিলো না, গোলাপ তোমার খুনখারাবি, হত্যাকাণ্ড এসব আমার একটু সয় না গোলাপ তোমায় আঘাত দেওয়ার নিষ্ঠুরতা ঠিকই আমি করতে চাইনি আমি বড়ো কোমল ছিলাম, গোলাপ তোমার মতোই ...

Read More »

তাকেই বলি প্রকৃতি __মহাদেব সাহা

ভিতর থেকে হয়ে উঠছে তাকেই বলি প্রকৃতি। বাইরে মেঘবৃষ্টি ঝড়ো হাওয়া কেমন শিশুর হাতে কাদামাটিতে গড়া, তার কোনো গ্রহস্ত চেহারা সেই তারই এক ডাকে কেন আমি এমন ঘর ছেড়ে আসবো! আমি এখনো মাঝে মাঝেই তৃষ্ণার্ত, নদীর কাছে করুণা চাইতে যাই, ব্যথিত আমি পাহাড়ের কাছে করুণা চাইতে যাই হয়তো তাদেরও ভিতরে ...

Read More »

তুমি __মহাদেব সাহা

তোমাকেই আজো মনে মনে করি উপাসনা ভাবি স্মরণযোগ্য বহু বেদনায় বহু ব্যবধানে তোমাকেই আজো অসময়ে খুঁজি, তুমি ছাড়া কোনো স্মরণযোগ্য নারী নেই আর নাম নেই আর তোমার প্রতিভা এই শতাব্দী তারও বেশিকাল পাবে প্রাধান্য আমাদের ঢের বয়সের বেশি তবু আমাদের বয়সের চেয়ে তারুণ্যময় তোমারই রূপের দুরন্ত খ্যাতি এ শহরে আজো ...

Read More »

তোমরা কেমন আছো __মহাদেব সাহা

তোমরা কেমন আছো হে আমার গভীর রাতের আহত করিয়া তোমরা কেমন আছো কেমন আছো আমার ফেলে আসা কবিতা তুমি কেমন আছো, কেমন আছো তোমরা সুখ দুঃখ, তোমরা তোমরা? আমি বহুদিন তোমাদের ফেলে এসেছি, মধ্যরাতের চাঁদ তোমাদের তোমরা কেমন আছো, সবাই কেমন আছো, তোমরা সব্বাই? আমি বেশ কিছুকাল তোমাদের সঙ্গছাড়া, বেশ ...

Read More »

যেতে যেতে অরণ্যকে বলি __মহাদেব সাহা

এমনও অরণ্য তাকে উদ্দাম মর্মর মূর্তি ধরে নেয়া যায়, বাতাসের অতি দম্ভ বৃক্ষের সমান উঁচু মেঘ, আরো উঁচু অরণ্যের সীমা এও শুধু অরণ্যেরই শোভা পায় এতো উঁচু এমন বিশাল তাই তো মর্মরমূর্তি অরণ্যকে নিঃশব্দ প্রস্তর বলে ভ্রম হয়, মনে হয় এ নৈঃশব্দ্য প্রস্তরেরই প্রাণ। অরণ্যও অনেকাংশে জলেরই মতন আস্থাবান অথবা ...

Read More »
DMCA.com Protection Status