Home / বাংলা কবিতা (কবিদের তালিকা অনুযায়ী) (page 3)

বাংলা কবিতা (কবিদের তালিকা অনুযায়ী)

শেষ দিন: ২০০১ – শ্রীজাত

কোনওদিন তোকে বলাও হবে না জানি আমি কোন-কোন সুড়ঙ্গে বেঁচে থাকি কপ্টার থেকে ত্রাণের বদলে কারা বিষ ছুড়েছিল… কলেজে-পালানো পাখি— কোনওদিন তোকে বোঝানো যাবে না, কেন কবিতায় আর বিশ্বাস থাকছে না তার চে’ আমার নতুন চেহারা ভাল, ফুটপাত থেকে দরদাম করে কেনা— চাপিয়ে নিয়েছি। শহরের ধোঁয়াপথে ভাঙা ভাঁড়ে লাথি মারতে-মারতে ...

Read More »

অপেক্ষা – শ্রীজাত

ভ্রু পল্লবে ডাক দিয়েছ, বেশ। আমার কিন্তু পুরনো অভ্যেস মিনিট দশেক দেরীতে পৌঁছনো তোমার ঘড়ি একটু জোরেই ছোটে আস্তে করে কামড় দিচ্ছ ঠোঁটে ঠোঁটের নীচে থমকে আছে ব্রণ কুড়ি মিনিট? বড্ড বাড়াবাড়ি! দৌড়ে ধরছ ফিরতিপথের গাড়ি ফিরতিপথেই ভুল হল সময়— আমারও সব বন্ধুরা গোলমেলে বুঝিয়েদেবে তোমায় কাছে পেলে কেমন করে ...

Read More »

বর্ষার চিঠি – শ্রীজাত

সোনা, তোমায় সাহস করে লিখছি। জানি বকবে প্রিপারেশন হয়নি কিচ্ছু। বসছি না পার্ট টুতে মাথার মধ্যে হাজারখানেক লাইন ঘুরছে, লাইন এক্ষুনি খুব ইচ্ছে করছে তোমার সঙ্গে শুতে চুল কেটে ফেলেছ? নাকি লম্বা বিনুনিটাই এপাশ ওপাশ সময় জানায় পেন্ডুলামের মতো দেখতে পাচ্ছি স্কুলের পথে রেলওয়ে ক্রসিং-এ ব্যাগ ঝুলিয়ে দাঁড়িয়ে আছ শান্ত, ...

Read More »

আমি খুব অল্প কিছু চাই – হুমায়ুন আহমেদ

আমাকে ভালবাসতে হবে না, ভালবাসি বলতে হবে না. মাঝে মাঝে গভীর আবেগ নিয়ে আমার ঠোঁট দুটো ছুয়ে দিতে হবে না. কিংবা আমার জন্য রাত জাগা পাখিও হতে হবে না. অন্য সবার মত আমার সাথে রুটিন মেনে দেখা করতে হবে না. কিংবা বিকেল বেলায় ফুচকাও খেতে হবে না. এত অসীম সংখ্যক ...

Read More »

কালকেতুর ভোজন – মুকুন্দরাম চক্রবর্তী

দূর হৈতে ফুল্লরা বীরের পাল্য সাড়া | সম্ভ্রমে বসিতে দিল হরিণের ছড়া || বোঁচা নারিকেলের পুরিয়া দিল জল | করিল ফুল্লরা তবে ভোজনের স্থল | চরণ পাখালি বীর জল দিল মুখে | ভোজন করিতে বৈসে মনের কৌতুকে || সম্ভ্রমে ফুল্লরা পাতে মাটিয়া পাথরা | ব্যঞ্জনের তরে দিলা নূতন খাপরা | ...

Read More »

জীবন সঙ্গীত – হেমচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়

বলো না কাতর স্বরে,                বৃথা জন্ম এ সংসারে এ জীবন নিশার স্বপন, দারা পুত্র পরিবার,                     তুমি কার কে তোমার বলে জীব করো না ক্রন্দন; মানব-জনম সার,                      এমন পাবে না আর বাহ্যদৃশ্যে ভুলো না রে মন; কর যত্ন হবে জয়,          জীবাত্মা অনিত্য নয় ওহে জীব কর আকিঞ্চন । করো না সুখের আশ,                পরো না দুখের ফাঁস, ...

Read More »

পিরীত করিয়ে পিরীত

পিরীত করিয়ে, পিরীত করিয়ে মোর মন উদাসী। প্রাণ গেল প্রাণ গেল, বন্ধুরে ভালবাসি।। কথা কয় প্রাণ বন্ধে, যখন হাসি হাসি। দেখিয়ে তাঁর রূপের বাহার, আইসে মোর বেহুশী।। পিরীত আজব চিজ্ জগতের প্রধান।। পিরীত কর প্রেমিকেরা, ছাড়িয়ে কুল মান। পিরীত রত্ন কর যত্ন, পিরীতি জানিয়া সার।। পিরীত ভাবে পাইবায়, বন্ধুয়ার দিদার। ...

Read More »

রঙ্গিয়া রঙ্গে আমি – হাসন রাজা

রঙ্গিয়া রঙ্গে আমি মজিয়াছি রে। মজিয়াছি রে, আমি ডুবিয়াছি রে।। আরশি পড়শী যাই চল, যাইমু বন্ধের সনে রে। কিবা ক্ষণে গিয়াছিলাম সুরমা নদীর গাঙ্গে। বন্ধে মোরে ভুলাইলো, রঙ্গে আর ঢঙ্গে রে।। হাটিয়া যাইতে খসিয়া যায় বন্ধে অঙ্গে, অঙ্গে। ধনকড়ি তোর কিছু চায় না, যৌবন কেবল মাঙ্গে রে। হাছন রাজায় নাচন ...

Read More »

আমি না লইলাম – হাসন রাজা

আমি না লইলাম আল্লাজির নাম। না কইলাম তার কাম। বৃথা কাজে হাছন রাজায় দিন গুয়াইলাম।। ভবের কাজে মত্ত হইয়া দিন গেল গইয়া। আপন কার্য না করিলাম, রহিলাম ভুলিয়া।। নাম লইব নাম লইব করিয়া আয়ু হইল শেষ। এখনও না করিলাম প্রাণ বন্ধের উদ্দেশ।। আশয় বিষয় পাইয়া হাছন (তুমি) কর জমিদারি। চিরকাল ...

Read More »

এগো মইলা – হাসন রাজা

এগো মইলা, তোমার লাগিয়ে হাছন রাজা বাউলা। ভাবতে ভাবতে হাছন রাজা হইল এমন আউলা।। দিনে রাইতে উঠে মনে, প্রেমানলের শওলা। আর কত সহিব প্রাণে, তুই বন্ধের জ্বালা।। সোনার রং অঙ্গ আমার, হইয়াছে রে কালা। অন্তরে বাহিরে আমার জ্বলিয়ে রহিল কয়লা।। লোকে বলে হাছন রাজা হইল রে আজুলা। হাতে তলি দিয়া ...

Read More »
DMCA.com Protection Status